News

Biman News

          

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের চলতি মৌসুমের প্রথম হজ্জ-ফ্লাইট বিজি-৩০০১ আজ ০৪ জুলাই’২০১৯ রোজ বৃহস্পতিবার সকাল ০৬:৫৮ ঘটিকায় ৪১৭ জন হজ্জ-যাত্রী নিয়ে জেদ্দার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে গেছে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মো: মাহবুব আলী ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোঃ অব্দুল্লাহ এ সময় বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে উদ্বোধনী ফ্লাইটের হজ্জ-যাত্রীদের বিদায় জানান। মাননীয় বিমান প্রতিমন্ত্রী যাত্রীদের সাথে একত্রে মোনাজাত এবং কুশল বিনিময় করেন। এ সময় বিমান পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল মোহাম্মদ ইনামুল বারী বিবিপি, এনডিইউ, পিএসসি (অব:), চেয়ারম্যান সিভিল এভিয়েশন এয়ার ভাইস মার্শাল মোঃ মফিদুর রহমান বিএসপি, বিইউপি, এনডিইউ,এএফডাব্লিইউসি, পিএসসি , ধর্ম সচিব, বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, সভাপতি হাব এবং মন্ত্রণালয়, সিভিল এভিয়েশন ও বিমানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য ইতোমধ্যে বিমানের দ্বিতীয় হজ্জ-ফ্লাইট বিজি-৩১০১ সকাল ১১:১৫ ঘটিকায় ৪১৭ জন তৃতীয় হজ্জ-ফ্লাইট বিজি-৩২০১ বিকাল ০৩:১৫ ঘটিকায় ৪১৭ হজ্জ-যাত্রী নিয়ে জেদ্দার উদ্দেশ্যে যথাসময়ে ঢাকা ত্যাগ করেছে।

 

মাননীয় বিমান প্রতিমন্ত্রী সকল সম্মানিত হজ্জ-যাত্রীর সুস্বাস্থ্য ও শুভযাত্রা কামনা করেন। তিনি আল্লাহ তালার নিকট প্রার্থনা করেন যেন সকল হজ্জযাত্রীর পবিত্র হজ্জ মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন কবুল করেন।

 

মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী সম্মানিত হজ্জ-যাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সকল হজ্জ-যাত্রীগণ যেন নির্বিঘ্ন ও সুষ্ঠুভাবে হজ্জ সম্পন্ন করতে পারেন সে ব্যাপারে অধিকতর সর্তকতা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হয়েছে। সব ক্ষেত্রে হজ্জ সংক্রান্ত সব বিষয়ে যে কোন ধরণের অবহেলা, সংকট ও অনিয়মকে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে এবং হবে বলে তিনি জানান। সবার জন্য একটি সফল ও পরিপূর্ণ হজ্জের জন্য তিনি দোয়া করেন। দেশ তথা জাতির সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ ধমীয় অনভূতিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে সকলের কাছ থেকে ইতিবাচক সহযোগিতা কামনা করেন।

 

এ বছর কিছু ফ্লাইটের জেদ্দা বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করার কথা। কিন্তু নেটওয়ার্ক জটিলতার কারণে প্রথম ও দ্বিতীয় হজ্জ-ফ্লাইটের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করা সম্ভব হয়নি। এটি একটি গ্লোবাল ডিজিটাল সমস্যা। আশা করা যাচ্ছে অচিরেই বাংলাদেশের নেটওয়ার্ক জটিলতার সমাধান হবে এবং যথারীতি ইমিগ্রেশন কার্যক্রম সম্পন্ন করা সম্ভব হবে।

 

আজ আরো একটি হজ্জ-ফ্লাইট বিজি-৩৩০১ রাত ১৯:১৫টায় এবং একটি শিডিউল ফ্লাইট বিজি-০০৩৫ রাত ২০:১৫ মিনিটে জেদ্দার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়ে যাবে।

 

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশ থেকে এবছর প্রায় ১,২৭,১৯৮ জন হজ্জ-যাত্রী পবিত্র হজ্জব্রত পালনে সৌদি আরব যাবেন। এবছর হজ্জ-ফ্লাইট ও শিডিউল ফ্লাইটে বিমানে যাবেন মোট ৬৩,৫৯৯ জন হজ্জ-যাত্রী, এর মধ্যে সরকারী ব্যবস্থাপনায় যাবেন ৭,১৯৮ ব্যালটি অবশিষ্ট ৫৬,৪০১ নন-ব্যালটি হজ্জ যাত্রী যাবেন বেসরকারী ব্যবস্থাপনায়। এ বছর হজ্জ-যাত্রীদের ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা রুটে পরিবহনের জন্য বিমানের ০৪টি নিজস্ব বোয়িং ৭৭৭-৩০০ইআর উড়োজাহাজ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা রুটে চলাচলকারী বিমানের নিয়মিত শিডিউল ফ্লাইটেও হজ্জ-যাত্রীরা পবিত্র ভূমি জেদ্দায় যাবেন।

 

দুই মাস ব্যাপী হজ্জ-ফ্লাইট পরিচালনায় শিডিউল ফ্লাইটসহ মোট ৩৬৫টি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে, যার মধ্যে ৩০৪ ‘ডেডিকেটেড’ এবং ৬১টি শিডিউল ফ্লাইট। ০৪ জুলাই থেকে ০৫ আগষ্ট পর্যন্ত ‘প্রি-হজ্জ-এ মোট ১৮৯টি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে  (ডেডিকেটেড-১৫৭ এবং শিডিউল ৩২)। পোস্ট-হজ্জে ১৭৬ টি ফ্লাইট চলবে ১৭ আগস্ট থেকে ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত (ডেডিকেটেড-১৪৭ এবং শিডিউল ২৯) এর মধ্যে বাংলাদেশ থেকে মদিনা ১৮টি ও মদিনা থেকে বাংলাদেশে ১৫টি সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। হজ্জ-ফ্লাইট পরিচালনার জন্য বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ঢাকা-জেদ্দা উভয় স্থানেই বিশেষ ব্যবস্থার আয়োজন করেছে।

 

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স একটি সর্বাঙ্গ-সুন্দর হজ্জ কার্যক্রম পরিচালনায় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। ২০১৯ সালের হজ্জ-কার্যক্রম সফল করে তুলতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স প্রিয় দেশবাসীর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছে।